শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০১৮, ০৮:৪৮ পূর্বাহ্ন

সুনামগঞ্জে বাঁধ কাটার অপরাধে সাজাপ্রাপ্ত আসামীকেই বাঁধ মেরামতের দায়িত্ব!

সুনামগঞ্জে বাঁধ কাটার অপরাধে সাজাপ্রাপ্ত আসামীকেই বাঁধ মেরামতের দায়িত্ব!

সুনামগঞ্জ : সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার বৃহত্তর শনির হাওরে বাঁধ কাটার অপরাধে সাজাপ্রাপ্ত আসামীকে ক্ষতিগ্রস্থ বাঁধ মেরামতের সদস্য সচিব করে কমিটি গঠন করা হয়েছে। অভিযুক্ত কাজল মিয়া উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের রামজীবনপুর গ্রামের মৃত চান মিয়ার পুত্র। এ বিষয়ে গত ২৬ ডিসেম্বর উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের রামজীবনপুর গ্রামের কৃষক উজ্জ্বল মিয়া তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি লিখিত অভিযোগে দায়ের করেন।
অভিযোগে পত্রে জানা যায়, পানি উন্নয়ন বোর্ড তাহিরপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির ৫৭নং তালিকায় শনির হাওর উপ-প্রকল্পের প্যাকেজ নং ৮৮ ও ১০৪ এ শনির হাওরে বাঁধ মেরামতের জন্য শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ডালিম মিয়াকে সভাপতি ও রামজীবনপুর গ্রামের কাজল মিয়াকে সদস্য সচিব করে ৫ সদস্যের একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি গঠন করা হয়।
অভিযোগে উল্লেখ, কমিটির সদস্য সচিব কাজল মিয়া ২০১৫ সালে শনির হাওরে সাহেব নগর বোর ফসল রক্ষা বাঁধ কাটার অপরাধে ভ্রাম্যমান আদালতে দোষী সাব্যস্ত হন এবং ভ্রাম্যমান আদালত তাকে ২ মাসের কারাদন্ড প্রদান করেন।
স্থানীয় হাওর পারের কৃষকদের অভিযোগ, বিগত বছর ঠিকাদার ও পিআইসিদের দুর্নীতির কারনে অকাল বন্যায় বোর ফসল রক্ষা বাঁধ ভেঙ্গে উপজেলার সব ক’টি বোর ফসলি হাওর তলিয়ে যায়। চলতি বছরও যদি দুর্নীতিগ্রস্থ কিংবা অসাধু ব্যক্তিদের দিয়ে আবার বাঁধের কাজ করানো হয়, তাতে গত বছরের মত দুর্নীতি যে হবে না তা বলার অপেক্ষা রাখে না। চলতি বছর তাহিরপুর উপজেলায় ৭টি ইউনিয়নে সবক’টি বোর ফসল রক্ষা বাঁধ মেরামতের জন্য ইতিমধ্যে ৬০টি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড এর তাহিরপুর উপজেলা বাস্তাবায়ন ও মনিটরিং কমিটি।
প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য সচিব কাজল মিয়া বলেন, স্থানীয় কিছু কুচুক্রি মহল আমার উপর বাঁধ কাটার অভিযোগ করেছিল। বিনা অপরাধে আমি দেড় মাস সাজা ভোগ করেছি।
শনি হাওর উন্নয়ন কমটির সাধারণ সম্পাদক ও তাহিরপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বোরহান উদ্দিন বলেন, শনির হাওরে বাঁধ কাটার অপরাধে ভ্রাম্যমান আদালত দুই মাসের কারাদন্ড প্রদান করেছিল কাজল মিয়াকে।
পানি উন্নয়ন বোর্ড তাহিরপুর উপজেলা ক্ষতিগ্রস্থ বাঁধ মেরামত বাস্তবায়ন ও মনিটরিং কমিটির সদস্য আলী মর্তুজা বলেন, এ বিষয়টি সম্পর্কে উপজেলা মনিটরিং কমিটির সভাপতি ভাল বলতে পারবেন। প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি ও তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পূর্নেন্দু দেব বলেন, ৭ চেয়ারম্যানসহ মনিটরিং কমিটিতে অনেকে আছেন। কিন্তু কেউ আমাকে এ বিষয়টি অবহিত করেন নি। আমি বিষয়টি দেখছি।
– জাহাঙ্গীর আলম ভুঁইয়া


© All rights reserved © 2017 BanglarKagoj.Net
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com