শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০১৮, ০৮:৫৯ পূর্বাহ্ন

শিগগিরই ঘুরে দাঁড়াবে বিএনপি : নোমান

শিগগিরই ঘুরে দাঁড়াবে বিএনপি : নোমান

bnp flag

স্টাফ রিপোর্টার:

সরকারের জুলুম-অত্যাচারের কারণে বিএনপির নেতা-কর্মীরা সংকটে আছে জানিয়ে দলটির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান বলেছেন, খুব শিগগির এই সংকট থেকে ঘুরে দাঁড়াবে তার দল।

তিনি বলেন, এই সরকার দেশ পরিচালনায় ব্যর্থ হয়েছে। জনগণ তাদের সঙ্গে নেই। বিএনপি দেশে একটি অবাধ, গ্রহণযোগ্য গণতান্ত্রিক নির্বাচন দেখতে চায়। বিএনপি শিগগিরই সংকট উত্তরণ ঘটিয়ে আবারো ঘুরে দাঁড়াবে।

শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স রুমে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

‘বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের শাহাদৎবার্ষিকী ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরে প্রত্যাশা ও প্রাপ্তি`’ শীর্ষক এই সভার আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী বন্ধু দল।

সময়ের প্রয়োজনে দেশে জাতীয় ঐক্য দরকার উল্লেখ করে নোমান বলেন, এ জন্য গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা প্রয়োজন। কিন্তু সরকার সেই পথে না হেঁটে বিরোধী দলের ওপর জুলুম-নির্যাতনের পথ বেছে নিয়েছে। দেশে আইনের শাসন নেই বলেই গত ১০ দিনে ১০ শিশু হত্যার ঘটনা ঘটেছে। আওয়ামী লীগের অঙ্গসংগঠনের ওপর দলটির কর্তৃত্ব নেই। সে জন্য শুধু বিরোধী দলের ওপরই নয়, ক্ষমতাসীনরা নিজেরা নিজেদের মধ্যে খুনোখুনিতে মেতে উঠেছে। শিক্ষাঙ্গনে অস্থিতিশীলতা চলছে।

দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সরকারের নিয়ন্ত্রণে নেই দাবি করে নোমান বলেন, এর কারণ সরকার প্রশাসনকে দলীয়করণ করেছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দায়িত্বশীলরা নিজেদের দলের কর্মী মনে করে। সে জন্য তারা পেশাদার দায়িত্ব পালনের পরিবর্তে সম্পদ বাড়াতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরে হওয়া সীমান্ত চুক্তিকে স্বাগত জানিয়ে বিএনপির এই ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, এর মাধ্যমে সীমান্তে বসবাস করা অসংখ্য মানুষ এত বছর পর স্বাধীনতা পেল। বিএনপি কখনোই ভারতবিরোধী ছিল না। এই দল সব সময় দেশের স্বার্থে কথা বলেছে। শাসক দল এই বিষয়টিকে ভারতবিরোধী হিসেবে প্রচার করেছে। কিন্তু বিএনপি সব সময় প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সঙ্গে সমতা ও পারস্পরিক লাভের ভিত্তিতে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক চেয়েছে।

মোদির সফরে ভারতের সঙ্গে হওয়া চুক্তিগুলো সম্পর্কে বাংলাদেশের জনগণ না জানলেও ভারতের জনগণ আগে থেকেই জানত বলে দাবি করেন নোমান। তিনি বলেন, ভারত এ ব্যাপারে সে দেশের রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করলেও আওয়ামী লীগ তা করেনি।

নোমান বলেন, ‘তিস্তা চুক্তি না হওয়ায় আমরা বঞ্চিত হয়েছি। কিন্তু ভারত তিস্তার পানি বণ্টন না করে ফেনী নদীর পানির কথা বলছে। তিস্তার সঙ্গে ফেনী নদীর পানির কোনো সম্পর্ক নেই।’

তিনি অভিযোগ করেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফরের আগে কুমিল্লায় পেট্রোল বোমা মেরে তাকে বোঝাতে চাওয়া হয়েছে বিএনপি-জামায়াত সহিংসতা করছে। বিএনপি এখন আন্দোলনে নেই, তারপরও সরকার কয়েক দিন পর পর এভাবে হামলা করে বিএনপি-জামায়াতের নেতাদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে কারাগারে পাঠানোর ষড়যন্ত্র করছে।

বিএনপির এই ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছিলেন, মোদির সফরে খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠকের কোনো সম্ভাবনা নেই। কিন্তু সফরে শুধু বৈঠকই হলো না, তাদের মধ্যে ১৫ মিনিট একান্ত বৈঠকও হলো। বৈঠকটি না হলে তারা (আওয়ামী লীগ) এ নিয়ে রাজনৈতিক ফায়দা নিত।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি শরীফ মোস্তফা জামান লিটুর সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট আহমদ আজম খান, বিএনপির সহ-তথ্য ও গবেষণাবিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব, সহ-স্বেচ্ছাসেবকবিষয়ক সম্পাদক এ বি এম মোশাররফ হোসেন, সহ-দফতর সম্পাদক আসাদুল করিম শাহীন, প্রাক্তন ছাত্রনেতা নুরুজ্জামান সরদার প্রমুখ।


© All rights reserved © 2017 BanglarKagoj.Net
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com