বুধবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৮, ০৮:৫৪ অপরাহ্ন

শিক্ষক আন্দোলন তবে কেন?

শিক্ষক আন্দোলন তবে কেন?

– কমল দেব –
হঠাৎই দেশের শিক্ষাঙ্গনে অস্থিরতা তবে কেন? প্রাথমিক থেকে শুরু করে মাধ্যমিক স্তরের ছোট বড় অনেক সংগঠনই আন্দোলনের হুমকি দিয়ে মাঠে। দাবী আদায়ের জন্যই এই আন্দালন। নতুন বছরের শুরুতে যখন বিদ্যালয়ে ভর্তি চলছে, বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠান, শিক্ষা সফর, বই উৎসবসহ নানা কার্যক্রম হচ্ছে, ঠিক তখনই সংগঠনের সাথে যুক্ত শিক্ষকদের একটা বড় অংশ। আন্দোলনে যেমন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে, তেমনি আমাদের দেশের ভাবমুর্তিও ক্ষুন্ন হচ্ছে। আন্দোলনের চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো ইন্টারনেটে ভাইরাল করছে। যার ফলে যে কোন ব্যক্তি তা সহজেই পাচ্ছে আর বিরূপ ধারণা তৈরি হচ্ছে। আর শিক্ষামন্ত্রী মহোদয় বলেন, শিক্ষকরা পেশাগত দাবী-দাওয়া জানাতেই পারে। দেশের সম্পদ সীমিত, তাই যৌক্তিক দাবি পুরণের উদ্যোগ অবশ্যই নেবে। পৃথিবীর ইতিহাসের সাথে আমাদের অমিল কোন দেশের শিক্ষকরা দাবি আদায়ের জন্য রাজপথে এভাবে পড়ে থাকেনি। তাহলে কি সরকারের শেষ বছরে নির্বাচনের আগে শিক্ষকদের দাবি দাওয়া পূরণে সরকার আন্তরিক হয়? যেমন ১৯৯৬, ২০০১ ও ২০০৬ সালে নির্বাচনের আগে শিক্ষকদের আন্দোলন করে দাবি আদায়ের নজির তো আছেই। সরকার আন্তরিক হলে শেষ বা শুরু কেন? এই মূহূর্তে আন্দোলনের মাঠে নন এমপিও শিক্ষকদের সংগঠনগুলো বিগত বছরগুলোতে এই নন এমপিও শিক্ষকরা বিভিন্ন ব্যানারে বিভিন্ন সংগঠনের সাথে মিলে আন্দোলন করেছে। আর ভাগ্যে জুটেছে পুলিশের পিপার স্প্রে, লাঠিপিটা। আর মিলেছে মিথ্যা আশ্বাস। কাজের কাজ কিছুই হয়নি। ভাগ্যের কোন পরিবর্তন হয়নি। মিলেছে আশ্বাস, মিলেনি এমপিও নামক সোনার হরিণের দেখা। ২০১৩ সালে এই নন এমপিও শিক্ষকদের আন্দোলনে পুলিশের লাঠির সাথে যুক্ত হয়েছিল পিপার স্প্রে। পৃথিবীর কোথাও কোন মানুষের উপর যা ব্যবহার হয়নি। আমাদের দেশে ব্যবহার হয়েছে। তাও আবার মানুষ গড়ার কারিগর শিক্ষকদের উপর। এই লজ্জা কার? অবশ্যই আমাদের। আমার উপর পিপার স্প্রে সর্বপ্রথম ব্যবহার করা হয় আমি তখনও জানতাম না এর ভয়াবহতা। হায়রে দেশ! আমি চোখ খুলতে পারিনি কয়েক ঘন্টা। তেমনি শিক্ষামন্ত্রীরও চোখ খুলেনি। খুলেনি অর্থমন্ত্রী মহোদয়েরও। সবশেষ ২০১০ সালে এমপিও দেয়া হয় ১ হাজার ৬২২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। সরকার বলেছিল, এর ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে। প্রতিবছর এমপিও দেয়া হবে। কিন্তু দেখা দেয়া হয়নি। যদি ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকত, প্রতিবছর এমপিও দেয়া হতো, তাহলে প্রতিষ্ঠানগুলো এমপিওবিহীন থাকত না। আর আন্দোলন করতেও হতো না। প্রতিবছর ৫০০ প্রতিষ্ঠানও যদি এমপিও দেওয়া হতো, তাহলেও ৭ বছরে তা শেষ হয়ে যেত। এখন প্রশ্ন দোষ কার?
মন্ত্রী মহোদয় নীতিমালার মালা তৈরিতে ব্যস্ত। অর্থমন্ত্রী টাকার হিসেবে ব্যস্ত। কোন কাজটা দেশে বাকী আছে? কোনটাই নয়। তবে কেন এই এমপিওভুক্তি না করার কালিমা কপালে জুটল। ৮-৯ দিন যাবত আমরণ অনশনে শিক্ষকরা শিক্ষামন্ত্রীর আশ্বাস। শিক্ষকরা এবার না ভুলে না মেনে আন্দোলন চালিয়ে যাওযার ঘোষনা দেন। ঘোষনা ঠিক আছে, আশ্বাস নয়। সুনির্দিষ্ট দিন-তারিখ দিতে হবে এমপিওভুক্তির জন্য। শিক্ষকদের দাবী এখন জাতীয় দাবীতে পরিণত হতে শুরু করেছে। অনেকে অনেকভাবে যুক্ত হচ্ছে এই যৌক্তিক দাবীর সাথে। অনেক শিক্ষক অসুস্থ। তাই আরো অসুস্থ না হওয়ার আগেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একটি সুনির্দিষ্ট ঘোষণা দিবেন বলে আমার বিশ্বাস।
লেখক- সহকারী শিক্ষক, কম্পিউটার, আন্দারুপাড়া উচ্চবিদ্যালয়


© All rights reserved © 2017 BanglarKagoj.Net
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com