শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০১৮, ০৮:৪৪ পূর্বাহ্ন

রমজানের আগে মুসলিমদের করণীয়…

রমজানের আগে মুসলিমদের করণীয়…

ramjan4

ইসলাম ডেস্ক :

দরজায় কড়া নাড়ছে মাহে রমজান। পবিত্র রমজান ইবাদতের মাস। পুণ্য অর্জনের মাস। রহমতের মাস। মাগফেরাতের মাস। জাহান্নাম থেকে মুক্তির মাস। মহান আল্লাহ এ মাসে রহমতের বারিধারা বর্ষণ করেন। বান্দাদের ক্ষমা করার জন্য সব আয়োজন করে রাখেন।

এ মাসে প্রতি রাতে একজন ঘোষণাকারী ঘোষণা করতে থাকেন- ‘হে সৎ পথের দিশারি! অগ্রসর হও। হে অকল্যাণের পথিক! সতর্ক হও।’অন্য হাদিসে বর্ণিত হয়েছে- রমজানের রোজা আল্লাহর কাছে এই বলে সুপারিশ করবে- ‘হে আল্লাহ! আমি তোমার বান্দাকে দিনের বেলা ভোগ-সম্ভোগ থেকে বিরত রেখেছি। তাই আজ আমি তার জন্য সুপারিশ করছি।’

আর কোরআনুল কারিম বলবে-‘আমি তোমার বান্দাকে রাতের বেলা সুখনিদ্রা থেকে বিরত রেখেছি। আমার কল্যাণে সে রাতে ঘুমাতে পারেনি। তাই আজ আমি তার জন্য সুপারিশ করছি।’ অতঃপর আল্লাহ তায়ালার দরবারে উভয় সুপারিশ গ্রহণযোগ্য হবে।

এ মাসে একটি ফরজ আমলের মূল্য অন্য সময় সত্তরটি ফরজ আমলের সমপরিমাণ। রাসূলে করিম (সা.) এরশাদ করেন, ‘রমজান মাসে যে ব্যক্তি একটি নফল আদায় করল, সে যেন অন্য মাসের একটি ফরজ আদায় করল। আর যে এ মাসে একটি ফরজ আদায় করল, সে যেন অন্য মাসের সত্তরটি ফরজ আদায় করল।’ (সহিহ ইবনে খুজাইমা)। রমজানের এক মাস সিয়াম সাধনা মোমিনের অন্তরে খোদাভীতি জন্ম দেয়। মনে প্রশান্তি অনুভব হয়।

সহজ ভাষায়- রমজান হলো পুণ্য অর্জনের মাস। ভালো আমলের মাধ্যমে জান্নাত লাভের মাস। খোদার নাফরমানি ত্যাগ করে খাঁটি মোমিনে রূপান্তর হওয়ার শ্রেষ্ঠ সময়। এ মাসে আমলের অনুকূল পরিবেশ তৈরির লক্ষে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন দুষ্ট জিনদের আবদ্ধ করে রাখেন। জাহান্নামের সব দরজা বন্ধ করে দেন। আর জান্নাতের সব দরজা উন্মুক্ত করে দেন।

হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী কারিম (সা.) বলেন, ‘রমজানের প্রথম রজনীর সূচনাতেই শয়তান এবং দুষ্টু জিনদের বেড়িবদ্ধ করা হয়। জাহান্নামের সব দরজা বন্ধ করে দেয়া হয়। তার একটিও খোলা থাকে না। জান্নাতের সব প্রবেশদ্বার খুলে দেয়া হয়। তার একটিও বন্ধ থাকে না।’

রোজার প্রতিদান বিষয়ে বোখারি শরিফে বর্ণিত হয়েছে, ‘যে ব্যক্তি ঈমানের দাবিতে এবং সওয়াবের প্রত্যাশায় রমজানের রোজা রাখবে, তার অতীতের সব গোনাহ মাফ করে দেয়া হবে।’ অন্যত্র এরশাদ হয়েছে, ‘নিশ্চয়ই রোজা আমার জন্য, আর রোজার প্রতিদান আমিই দান করি।’ (বোখারি ও মুসলিম)।

এমন বরকতি একটি মাস আমাদের সামনে সমাগত। তাই এ মাসের প্রতিটি আমল যথাযথভাবে আদায়ের লক্ষে আমাদের পূর্বপস্তুতি নেয়া উচিত। মানসিক এবং আর্থিকসহ সব রকম প্রস্তুতিই নিয়ে রাখা একান্ত প্রয়োজন। রমজানে আল্লাহ তায়ালা আসমান-জমিনের নেজাম (নিয়ম বা রুটিন) পরবির্তন করেন। তাই আমাদেরও রমজান উপলে দৈনন্দিন চলার রুটিনে পরিবর্তন আনা উচিত। রমজানে নফল নামাজ আদায়, পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত, তারাবির নামাজ আদায়, শেষ রাতে তাহাজ্জুদ পড়াসহ গুরুত্বপূর্ণ সব আমলের জন্য আদালা রুটিন করে রাখা অতীব জরুরি। না হয় অন্যান্য ব্যস্ততার মাঝে এসব আমল হয়ে উঠবে না। এরই সঙ্গে খাবারের রুটিনেও পরিবর্তন আনা জরুরি। রুচিসম্মত হালাল খাবার, পর্যাপ্ত পরিমাণ পানীয় গ্রহণ রমজানের ইবাদতে সহায়ক হিসেবে কাজ করে। আর সুন্নতি খাবার ‘খেজুর’ অব্যশ্যই রুটিনে থাকা চাই।

রামাযান শুরু হওয়ার আগের পরিকল্পনাঃ

১) রামাযান শুরু হওয়ার আগেই ঘরবাড়ি পরিস্কার করার কাজ সেরে রাখুন। ঘরে সাজিয়ে রাখা শোপিস, ফুল, ঘরের সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য দেয়ালে টাঙ্গানো ছবি, পর্দা, রান্নাঘরের কেবিনেট, রেফ্রিজারেটর, ওভেন ইত্যাদি। ২) রামাযানের আগেই মুদি দোকানের সব কেনা কাটা করে নিন এবং সব গুছিয়ে রাখুন প্রয়োজনে কৌটার গায়ে জিনিস পত্রের নাম লিখে রাখুন যেন দরকারের সময় অযথা খুঁজাখুঁজি করে সময় নষ্ট না করতে হয়। ৩) যে জামা-কাপড় গুলি অনেক দিন জমিয়ে রেখেছেন লন্ড্রিতে দিবেন বা বাসায় ধুয়ে নিবেন সেগুলি ধুয়ে ইস্ত্রি করে আলমারিতে তুলে রাখুন। নয়তো এগুলির জন্য আপনাকে পরিশ্রম এবং টেনশন দুটোই করতে হবে । ৪) বাইরের ভেজাল খাবার না খেতে চাইলে রমজানের আগে কিছু কিছু খাবার দু চার দিন বা এক সপ্তাহের জন্য রান্না করে ফ্রিজ আপ করে রাখতে পারেন। যেমন গোস্তের কিমা, ছোলা, সিদ্ধ, মিষ্টি দই ইত্যাদি।এতে করে ঘরের বানানো নির্ভেজাল খাবার খেতে পারবেন এবং কয়েকদিনের জন্য ফ্রী থাকবেন যাতে এই সময়টা ইবাদাতের কাজে লাগাতে পারেন। ৫) সারা মাস জুড়ে চলে ঈদের কেনা কাটার ব্যস্ততা। এই ঝামেলা থেকে মুক্তি রমজান শুরু হওয়ার আগেই পরিবারের সবার জন্য লিস্ট করে ঈদের কেনা কাটা সেরে ফেলুন। এতে একদিকে যেমন সময়কে সুস্থ ভাবে কাজে লাগাতে পারবেন তেমনি বাড়তি খরচ থেকেও মুক্তি পাবেন।

রামাযানের দিনগুলি আমরা কিভাবে কাটাতে পারি তার পরিকল্পনাঃ

১) প্রতি ওয়াক্তের ফরজ নামাজ নিয়মিত আদায় করার চেষ্টা করুন। সুন্নত এবং নফল ইবাদাত আপনার পে যতটা সম্ভব বাড়িয়ে দিন। সন্তানদেরকেও ইবাদতে অভ্যাস গড়ে তুলুন। রামাদানের শেষ দশ দিনে ইবাদাত যেন বেশি বেশি করতে পারেন তারজন্য আল্লাহ্র কাছে দুয়া করুন। ২) শুধু কোরআন খতমের দিকে ল্য না রেখে কোরআন অর্থ বুঝে পড়ার চেষ্টা করবেন। যাতে আল্লাহ্ তায়ালা কোরআন আমাদের জন্য কেন নাযিল করেছেন। জীবনের প্রতিটা েেত্র কি কি বিধি বিধান রয়েছে সেটা বুঝতে পারেন। ৩) সন্তানদের রোজা রাখার জন্য তাগিদ দিবেন। গেমস কম্পিউটার চালানো ইত্যাদি থেকে তাদের বিরত রেখে কোরআন পড়ার প্রতি উৎসাহ দিবেন এবং নিজে তাদের সাথে বসবেন। ৪) আমরা কেউই ভুল ভ্রান্তির ঊর্ধ্বে না তাই নিজের দোষ গুলি খুঁজে বের করুন। অন্যের সাথে সুসম্পর্ক গড়ে তুলুন এবং অন্যকে মা করার চেষ্টা করুন। গীবত-চোগলখুরি আর ঝগড়া-বিবাদ থেকে নিজেকে বাঁচিয়ে রাখুন। ৫) খাবার-দাবারের কাজে নিজেকে এতটা ব্যস্ত রাখবেন না যাতে আপনি কান্ত হয়ে পড়েন এবং রাতের তারাবীহ নামাজ পরতে অলসতা বোধ করেন। তাই যতটা সম্ভব খাবার তৈরিতে এবং পরিশ্রমের মাঝে ভারসাম্য রাখার চেষ্টা করবেন। ৬) সেহরী খাওয়া একটা সুন্নত। তাই রাতের একটা নির্দিষ্ট সময় ঘুমিয়ে কান্তি দুর করুন এবং সেহরী খাওয়ার প্রতি সবাইকে উৎসাহিত করুন। ৭) অযথা সারা রাত জেগে থেকে দিনের অধিকাংশ সময় ঘুমিয়ে কাটানোর পরিকল্পনা বাদ দিন। ৮) নিজেদের ইফতার থেকে প্রতিদিন অন্তত একজন রোজাদারকে ইফতারী করানোর চেষ্টা করুন। অবশ্যই নিজেদের গরীব আত্মীয়-স্বজনদের থেকে আগে নির্বাচন করবেন। যতটা সম্ভব গরীব আত্মীয়-স্বজনদের যোগাযোগ রাখুন এবং তাদের সাহায্য সহযোগিতা করার চেষ্টা করুন। ৯) ইফতারীর সময় কিছুটা হাতে রেখে ইফতারী তৈরির কাজ শেষ করবেন যেন পরিবারের সবার সাথে বসে একসাথে ইফতারী করতে পারেন। ১০) আতœ সমালোচনা করে নিজের সকল গুনাহ, ভুল-ক্রুটির জন্য আল্লাহ্র কাছে খাঁটি মনে তওবা করুন এবং শিরক বিদআত থেকে মুক্ত থাকার জন্য আল্লাহ্র কাছে হিদায়েত প্রার্থনা করুন। ১১) নিজের সামর্থ্য অনুযায়ী এ মাসে দান সাদাকা করার চেষ্টা করুন। যাকাত ফিতরা আদায় করুন। ১২) ঘরের বিভিন্ন কাজের ফাঁকে ফাঁকে বিভিন্ন সুন্নতী জিকির-আযকার করে আপনার নেকির পরিমান বাড়ানোর চেষ্টা করুন। ১৩) একজন মুসলিমাহর প্রাত্যহিক জীবন কেমন হওয়া উচিৎ! দিনের একটা অবসর সময় বেছে নিয়ে আপনার কাছের বান্ধবীদের সাথে নিয়ে বসে আলোচনা-পর্যালোচনা করুন এবং নিজেদেরকে এক একজন উন্নত মুসলিমাহ হিসেবে গড়ে তোলার জন্য একে অন্যকে অনুপ্রেণা দিন। ১৪) সহীহ-শুদ্ধ ভাবে দ্বীনের জ্ঞান লাভের চেষ্টা করুন। দ্বীনের দাওয়াত দেয়ার কোন সুযোগ পেলে সেটা হাতছাড়া করবেন না। যথাসাধ্য চেষ্টা করুন সহীহ ভাবে অন্যকে জানাতে। ১৫) রোজা থাকা অবস্থায় দোয়া কবুল হয় তাই এ সময় বেশি বেশি করে দোয়া করুন, নিজের জন্য, পরিবারের জন্য, বাবা-মায়ের জন্য, সকল মুমিন মুসলিমদের জন্য এবং দোয়া করুন এ পরিকল্পনাগুলি যেন সার্থক ভাবে পালন করে সফল হতে পারেন।

রামাযান মাসে মুমিনের দৈনন্দিন কর্মসূচীঃ

রহমতের মাস, বরকতের মাস, কল্যাণের মাস, মার মাস, কুরআনের মাস মাহে রামাযান আমাদের মাঝে উপস্থিত। এ মাসে জান্নাতের দরজাগুলো খুলে দেয়া হয়েছে। জাহান্নামের দরজাগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। কিন্তু আমরা কি রামাযানের এই মহামূল্যবান সময়গুলোকে যথাযথভাবে কাজে লাগাতে পারছি? আসুন না একটি তালিকা তৈরি করি যেন এই মাসের প্রতিটি মুহূর্তে নেকী কুড়িয়ে আখেরাতের জন্য সঞ্চয় করে রাখতে পারি।

ফজর পূর্বে: ১) আল্লাহর দরবারে তাওবা-ইস্তেগফার ও দুয়া: কারণ মহান আল্লাহ প্রত্যেক রাতের শেষ তৃতীয়াংশে পৃথিবীর আকাশে অবতরণ করে বলেন: “কে আছে আমার কাছে দুআকারী, আমি তার দুআ কবুল করবো”। (মুসলিম) ২) সাহরী ভণ : নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন : “সাহরী খাও। কারণ সাহরীতে বরকত আছে”। (বুখারী মুসলিম)

ফজর হওয়ার পর: ১) ফজরের সুন্নত আদায়: নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন : “ফজরের দুই রাকাআত সুন্নত দুনিয়া ও দুনিয়ার মাঝে যা আছে তার থেকে উত্তম”। (মুসলিম) ২) ইকামত পর্যন্ত দুআ ও যিকিরে মশগুল: নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন :”আযান ও ইকামতের মাঝে দুআ ফিরিয়ে দেওয়া হয় না”। (আহমদ, তিরমিযী, আবূ দাউদ) ৩) ফজরের নামায আদায়: নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন :”তারা যদি ইশা ও ফজরের ফযীলত জানতো, তো হামাগুড়ি দিয়ে হলেও তাতে উপস্থিত হত”। (বুখারী ও মুসলিম) ৪) সূর্যোদয় পর্যন্ত সকালে পঠিতব্য দুআ-যিকর ও কুরআন তিলাওয়াতের মাধ্যমে মসজিদে অবস্থান: “নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ফজর নামাযের পর নিজ স্থানেই সূর্যোদয় পর্যন্ত অবস্থান করতেন”। (মুসলিম ) ৫) সূর্যোদয়েরে পর দুই রাকাআত নামায: নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন :”যে ব্যক্তি জামায়াতের সহিত ফজরের নামায পড়লো, অতঃপর সূর্যোদয় পর্যন্ত বসে আল্লাহর যিকর করলো, তারপর দুই রাকাআত নামায আদায় করলো, তার জন্য এটা একটি পূর্ণ হজ্জ ও উমরার মত “। (তিরমিযী) ৬) নিজ নিজ কর্মে মনোযোগ: নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন: “নিজ হাতের কর্ম দ্বারা উপার্জিত খাদ্যের চেয়ে উত্তম খাবার নেই”। (বুখারী)

যহরের সময় : ১) জামায়াতের সহিত জহরের নামায আদায়। অতঃপর কিছুণ কুরআন কিংবা অন্যান্য দীনী বই পাঠ। ২) আসর পর্যন্ত বিশ্রাম, কারণ তিনি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন: (তোমার উপর তোমার শরীরেরও হক আছে)।

আসরের সময় : ১) আসরের নামায জামাতের সাথে সম্পাদন: অতঃপর ইমাম হলে নামাযীদের উদ্দেশ্যে দারস প্রদান কিংবা দারস শ্রবণ কিংবা ওয়ায নসীহতের ক্যাসেট ও সিডির মাধ্যমে জ্ঞান অর্জন। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন :”যে ব্যক্তি মসজিদে ভাল কিছু শিক্ষা নিতে কিংবা শিা দেওয়ার উদ্দেশ্যে গেল, সে পূর্ণ এক হজ্জের সমান নেকী পেল”। (ত্ববারানী) ২) পরিবারের সদস্যদের সাথে ইফতারির আয়োজনে সহায়তা করা: এর মাধ্যমে যেমন কাজের চাপ হাল্কা হয় তেমন পরিবারের সাথে ভালবাসাও বৃদ্ধি পায়।

মাগরিবের সময়। ১) ইফতারি করা এবং এই দুআ পাঠ করা: “যাহাবায্ যামাউ ওয়াব্ তাল্লাতিল্ উরূকু ওয়া সাবাতাল্ আজরু ইন্ শাআল্লাহু তাআলা”। অর্থ: পিপাষা নিবারিত হল, রগ-রেশা সিক্ত হল এবং আল্লাহ চাইলে সওয়াব নির্ধারিত হল। (আবূ দাউদ) ২) মাগরিবের নামায জামায়াতের সাথে আদায় করা যদিও ইফতারি পূর্ণরূপে না করা যায়। বাকি ইফতারি নামাযের পর সেরে নেওয়া মন্দ নয়। অতঃপর সন্ধ্যায় পঠিতব্য যিকির-আযকার পাঠ করে নেওয়া। ৩) স্বভাবানুযায়ী রাতের খাবার খেয়ে নিয়ে একটু বিশ্রাম করে তারাবীর নামাযের জন্য প্রস্তুতি নেওয়া।

ইশার সময় : ১) জামায়াতের সহিত ইশার নামায আদায় করা। ২) ইমামের সাথে সম্পূর্ণ তারাবীর নামায আদায় করা। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন: “যে ব্যক্তি ঈমান ও নেকীর আশায় রমযানে কিয়াম করবে, (তারাবীহ পড়বে) তার বিগত সমস্ত (ছোট গুনাহ) মা করা হবে”। (বুখারী ও মুসলিম) ৩) সম্ভব হলে বিতরের নামায শেষ রাতে পড়া। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন: তোমরা বিতরকে রাতের শেষ নামায কর”। (মুত্তাফিকুন আলাইহ)

পরিশেষে আরো একটি পরিকল্পনা থেকে যায় সেটা হল-এ মাসে নিজেকে যেভাবে চালিয়ে নিয়েছেন পরবর্তী দিনগুলিও যেন সেভাবে চালানোর চেষ্টা করতে পারেন এর জন্য একটা পরিকল্পনা। কিন্তু সে পরিকল্পনা হোক আপনাদের নিজেদের জীবনে যার যার সুযোগ সুবিধা মতো। আল্লাহ আমাদের সবার প থেকে রমজান কবুল করুক এবং তার দ্বীনের উপর অবিচল থাকার তৌফিক দান করুক -আমীন।


© All rights reserved © 2017 BanglarKagoj.Net
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com