বুধবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৮, ০৮:৫১ অপরাহ্ন

বৃষ্টিতে জলমগ্ন নালিতাবাড়ী পৌরসভা : নাগরিক ভোগান্তি চরমে

বৃষ্টিতে জলমগ্ন নালিতাবাড়ী পৌরসভা : নাগরিক ভোগান্তি চরমে

zolaboddhota-1

বাংলার কাগজ প্রতিবেদক :

কিছু সংখ্যক জমি ও বাসা-বাড়ির মালিকদের অপরিকল্পিত অবকাঠামো তথা পানি প্রবাহের রাস্তা বন্ধ করে দেওয়া এবং পৌরসভা কর্তৃক পানি নিষ্কাশনের সঠিক ব্যবস্থা না থাকায় অল্প বৃষ্টিতেই ব্যাপক জলাবদ্ধতা দেখা দেয় দ্বিতীয় শ্রেণির পৌরসভা নালিতাবাড়ীতে। গত ১১ ও ১২ জুনের টানা বর্ষণে এ জলাবদ্ধতা ছোটখাটো প্লাবনকেও হার মানায়। ফলে ব্যাপক দুর্ভোগ পোহাতে হয় এলাকাবাসীর।
সরেজমিনে পরিদর্শন করে দেখা গেছে, পৌর শহরের বাজার ছিটপাড়া, মহিলা কলেজ-পোস্ট অফিস রোড, আমবাগান, টিএন্ডটি রোড, নিলামপট্টি, সাহাপাড়া, চকপাড়া ও নালিতাবাড়ী বাজার এবং বেপারিপাড়ার একাংশসহ বেশ কয়েকটি এলাকা সামান্য বৃষ্টিতেই পানির নিচে তলিয়ে যায়। বাস্তা-ঘাট, বাড়ির আঙিনা থেকে শুরু করে ময়লা-আবর্জনার ড্রেন সবই একাকার হয়ে যায়। আর ভারি বর্ষণ হলে তো কথাই নেই। চারদিকে শুধু পানি আর পানি। অপরিকল্পিত ভাবে বাসা-বাড়ির অবকাঠামো নির্মাণ, ব্যক্তিগত স্বার্থে পানি নিস্কাশনের পথ বন্ধ করে দেওয়া ও পানি নিস্কাশনের জন্য পৌরসভার প্রয়োজনীয় এবং পরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থার অভাবে এ দূরবস্থার সৃষ্টি হয়। ফলে এসব এলাকায় বসবাসকারী নাগরিকরা চরম দূর্ভোগের শিকার হন। বিপাকে পড়ে স্কুল-কলেজ-মাদরাসাগামী সব বয়সের শিক্ষার্থীরা। অনেকে জামা-কাপড় গুটিয়ে চলাচল করে। অনেকেরই আবার ময়লা পানিতে কাপড়-চোপড় নোংড়া হয়।
গত ১১ ও ১২ জুনের ভারি বর্ষণে এ দূর্ভোগ বহুগুনে বেড়ে যায়। পৌরসভার এসব এলাকার প্রায় সত্তর ভাগ বাসি-বাড়ি দীর্ঘ সময় ময়লা ও বৃষ্টির পানিতে নিমজ্জিত থাকে। ফলে নাগরিক ভোগান্তি চরমে পৌছে। এরমধ্যে ৪ নং ওয়ার্ডে জলাবদ্ধতা নিরসনে সংশ্লিষ্ট কাউন্সিলরকে নাগরিকদের পাশে থেকে কাজ করতে দেখা যায়। এছাড়া আর কোন স্থানে কাউন্সিলর বা মেয়রের কোন উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ দেখা যায়নি। উপরন্তু ভোগান্তিতে পড়া নাগরিকরা জনপ্রতিনিধিদের জানালে কেউ কেউ “আমি কী করব?” বলেও জবাব দেন। আমবাগানসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, অনেকেরই ঘরে চুলা জ্বলছে না। ঘরে এবং বাইরে পানির সাথে ময়লা আবর্জনা ছাড়াও বিষ্ঠা ছড়িয়ে পড়েছে। এতে করে পানিবাহিত রোগ-বালাই ছড়িয়ে পড়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। অনেকেই নিজের ব্যর্থ চেষ্টা শেষে ফেসবুকে জলাবদ্ধতা ও দুর্ভোগের চিত্র প্রকাশ করেছেন।
ভোগান্তির শিকার বাসিন্দাদের অভিযোগ, বাসা-বাড়ি নির্মাণের সময় পানি নিস্কাশনের পথ বন্ধ করে দেওয়া, ছোটখাটো নালাগুলো ভরাট হয়ে যাওয়া এবং অপরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থাই এর জন্য দায়ী। বিশেষ করে প্রভাবশালী ও স্বচ্ছল পরিবারের লোকেরা পানি প্রবাহের রাস্তা বন্ধ করে ফেলায় এ সমস্যা প্রকট আকার ধারণ করেছে। এছাড়াও সময়মতো ড্রেন পরিস্কার না করাও এক্ষেত্রে অনেকটা দায়ী।
তারা অভিযোগ করে আরও বলেন, ভোট নষ্টের ভয়ে জনপ্রতিনিধিরা পানির পতিপথ বন্ধকারীদের কিছু বলেন না এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেন না। অবস্থাদৃষ্টে মনে হয়, এ পৌরসভায় কোন জনপ্রতিনিধি নেই। কেউ আমাদের খোঁজ পর্যন্ত নেন না। শুধু নির্বাচন এলেই হাতেপায়ে ধরা শুরু হয়।
কেউ কেউ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সামনের নির্বাচনে এসব মূল্যায়ন করেই আমরা সিদ্ধান্ত নেব।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের গেজ রিডার ও ৪নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মুকুল জানান, পানির জন্য বের হওয়া যাচ্ছে না। বাড়ির আঙিনা থেকে শুরু করে সব জায়গায় পানি আর পানি।
আমবাগানের ৪নং ওয়ার্ড বাসিন্দা বিপ্লব দে কেটু জানান, পানির সাথে মানুষের বিষ্ঠাও এখন বাসা-বাড়িতে ভেসে বেড়াচ্ছে। ইতিমধ্যেই বাড়ির শিশুদের ঠান্ডাজনিত রোগ দেখা দিয়েছে।
বেপারিপাড়ার ৭নং ওয়ার্ড বাসিন্দা আফছার উদ্দিন জানান, আমাদের পুরো এলাকাই পানিতে তলিয়ে রয়েছে। বাসা-বাড়ি, রাস্তা-ঘাটসহসব জায়গায় জলাবদ্ধতা। ফলে ভোগান্তির শেষ নেই।
পৌর মেয়র আনোয়ার হোসেন জানান, ইদানিং বৃষ্টি বেশি হওয়াতে আমাদের জলাবদ্ধতা বেড়েছে। এছাড়াও প্রয়োজনীয় ড্রেনেজ ব্যবস্থার অভাব এবং অপরিকল্পিত ভাবে কিছু মানুষ ঘরবাড়ি উঠিয়ে পানি প্রবাহের রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছেন। আমরা এগুলোর প্রতিবাদ করলেও তারা মানছেন না, উল্টো প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করেন। তবে ইতিমধ্যেই ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়ন করতে প্রায় ৬০লাখ টাকার টেন্ডার আহবান করা হয়েছে। আমরা আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। তিনি এ বিষয়ে নাগরিকদের সহযোগিতাও কামনা করেন।


© All rights reserved © 2017 BanglarKagoj.Net
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com