বুধবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৮, ০৮:৪৯ অপরাহ্ন

বিশ্বদেবের মৃত্যু : মামলা পাল্টা মামলা : ফায়দা লুটছে কে?

বিশ্বদেবের মৃত্যু : মামলা পাল্টা মামলা : ফায়দা লুটছে কে?

– মনিরুল ইসলাম মনির –
বরাবরই আমার লেখনি তীক্ষ্ণ-ধারালো। কেন জানি মুখে মধুর পরিবর্তে তেঁতো কথা চলে আসে। ফলে সুবিধাবাদী, স্বার্থান্বেষী ও পরশ্রীকাতর লোকেদের চক্ষুশূলে পরিণত হই বারবারই। কেউ বলেন, ‘বহু মানুষ আমার শত্রু’। দ্বি-মত করি না। তবে মিত্রের সংখ্যা অবশ্যই তার চেয়ে অনেক বেশি- এটা ওইসব ব্যক্তিরা জানেন না। বাস্তবতা হলো, তেঁতো কথায় খুশি হয় এমন লোকের সংখ্যাও সমাজে আশাব্যঞ্জক বলেই সোজা পথে চলতে পারি না। কথিত বাঁকা পথেই হাঁটি লেখতে গিয়ে। জানি, আজও অনেকেরই মুখ কালো মেঘে ঢাকা পড়বে। এরপরও নিতান্তই সত্য যে পেটে ধরতে চাচ্ছে না। বলাচলে আমার হজম শক্তি একটু কম।
বিশ্বদেব দে অথবা বিশ্বদেব সরকার। একজন খেটে খাওয়া শ্রমজীবি হতদরিদ্র যুবক। নুন আনতে পান্তা ফুরানোর অবস্থা তার পরিবারবর্গের চোখেমুখে সর্বদাই স্পষ্ট। নেশাগ্রস্ততা নয়, হয়তো সনাতন ধর্মাবলম্বী বলে কিছুটা পরম্পরা হিসেবেই গাঁজা সেবনের অভ্যাস ছিল (যদিও প্রমাণিত নয়)। তাই পুলিশ সদস্যরাও তার পিছু নিয়েছিলেন। ১ অক্টোবর প্রকাশ্যে দিবালোকে সুস্থ অবস্থায় তাকে পুলিশি হেফাজতে নেওয়া হলো। নেওয়ার সময় চিরায়ত নিয়মে দু-চারটা চরথাপ্পড় শরীরে পড়েছে বিশ্বদেব এর। এরপর পরিবারের লোকেদের অনুনয়-বিনয়। শেষ পর্যন্ত মুচলেকা দিয়ে রাত প্রায় সাড়ে দশটার দিকে তার মুক্তি মিলে। রিক্সাযোগে আসার পথে অসুস্থ বোধ করে বিশ্বদেব। রাত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে অসুস্থতা বাড়তে থাকে। মধ্যরাতে নিয়ে যাওয়া হয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান, বিশ্বদেব মারা গেছে। রাতের ঘটনা এখানেই সমাপ্তি।
পরদিন ২ অক্টোবর ভোর হলো। কেউ একজন ফোনে জানাল, ‘ভাই পুলিশ তো কাচারীপাড়ার একজনকে নির্যাতন করে মেরে ফেলেছে!’ আমি মোটরবাইক দুর্ঘটনায় আহত ছিলাম বলে এবং কৌশলগত কারণে পরিস্থিতি দেখার অপেক্ষায় একঘণ্টা পর বাসা থেকে বেরুলাম। তারপর শোনতে পেলাম বিশ্বদেবের মরদেহ নিয়ে উত্তর বাজারে জনতা বিক্ষোভ করছে। রিক্সাযোগে হাবিব কমপ্লেক্স এর কাছে আসতেই দেখতে পেলাম বিক্ষুব্ধ জনতা রাস্তায় কিছু ফেলে ভাংচুর করছে। আমি যথারীতি ক্যামেরা অন করে এক হাতে লুঙ্গি ধরে অন্য হাতে দায়িত্ব পালনের চেষ্টা করছিলাম। মুহূর্তেই কিছু যুবক হাবিব কমপ্লেক্স এর তৃতীয় তলায় থাকা পুলিশের সহকারী সার্কেলের অফিস লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করতে শুরু করল। প্রথমে আমি এরপর যুবলীগের জাহাঙ্গীর ভাই এসে ইটপাটকেল নিক্ষেপকারীদের দমনের চেষ্টা করে সফল হওয়া গেল। এরইমধ্যে উত্তেজিত জনতা মোড়ে অবস্থান নিয়ে শ্লোগান দিতে দিতে টায়ারে আগুন ধরালো। চলতে থাকল বিশ্বদেব এর মরদেহ নিয়ে বিক্ষোভ। কয়েক মিনিটের ব্যবধানে বর্তমান ক্ষমতাসীন দলের ক্ষমতাসীনদের টাচে থাকা এক যুবকের নেতৃত্বে শহীদ মিনার চত্বর থেকে পুলিশের অফিস লক্ষ্য করে ইটপাটকেল মারতে শুরু করল এবং ওই যুবক নেতৃত্ব দিতে থাকল। এবার আমি প্রথমে বারণ করেও পরিবেশ অনুকূল মনে না করে পুনরায় পেশাগত কাজে যোগ দিলাম। এরইমধ্যে জাহাঙ্গীর ভাই এসে এদেরও ধমকে থামিয়ে দিলেন। পরে বিক্ষোভ-বক্তব্য-মিছিল সবকিছুই হলো। যারা এসবের মূল নেতৃত্বে ছিল, তারা শহরময় হরতালের ঘোষণা দিয়ে ভয়-ভীতি ছড়িয়ে দিল। আর এ বিক্ষোভের পেছনে আরেকটি পক্ষ ফায়দা লুটার চেষ্টায় আগুনে ঘি ঢালার কাজ চালিয়ে গেল। এরপর দুপুরের দিকে পরিস্থিত নিয়ন্ত্রণে এলো।
এবার পূর্নদৈর্ঘ কাহিনী শুরু। তাড়াহুড়ো করে বিশ্বদেব এর মরদেহ ময়নাতদন্ত শেষে পুলিশি পাহারায় সৎকার করা হলো। চাপা মামলা আতঙ্কে পড়ে গেল অনেকেই। ঘটনার কয়েকদিন পর শোনা গেল মামলা হয়েছে। তবে বিশ্বদেব এর পক্ষে নয়, আন্দোলনকারীদের বিপক্ষে! আবার বেশিরভাগ আসামীই রাজনৈতিক! আন্দোলনের ‘মাস্টার মাইন্ড’দের বাইরে রেখে কিছু দোষী আর কিছু নির্দোষ লোককে আসামী করা হয়েছে। ফলে এ মামলা নিয়ে তীব্র সমালোচনা শুরু হলো। একপর্যায়ে থেমেও গেল। কিন্তু মাত্র কয়েকদিনের ব্যবধানেই এ ঘটনার সুফল ভোগ করে নিল অন্য একটি রাজনৈতিক পক্ষ। তাদের দীর্ঘদিনের প্রতীক্ষার ফসল ঘরে উঠল। ত্রী-পক্ষীয় রাজনৈতিক কোন্দল ভেতরে ভেতরে আগ্নেগিরি হতে চলেছিল। অবশ্য বিশ্বদেব এর পরিবার শান্তনা পেয়েছে কি না জানা গেল না। শুধু জানা গেল, আওয়ামী লীগ তার মাকে অর্থ সহায়তা দিয়েছে। এরপর থমকে গেল সবকিছু। এরইমধ্যে ১১ জানুয়ারি বিশ্বদেব এর বড় ভাই সত্যানন্দ বাদী হয়ে বিশ্বদেবকে অপহরণের পর হত্যার অভিযোগ এনে আদালতে বিচারপ্রার্থী হলেন। আসামী করা হলো সংশ্লিষ্ট দুই এসআই আতিয়ার ও সুমন, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফসিহুর রহমান, ট্রাক মালিক সমিতি ও পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অরুণ চন্দ্র সরকার, যুবলীগের আহবায়ক জাহাঙ্গীর আলম, যুগ্ম-আহবায়ক শামসুদ্দিন চঞ্চলসহ ১২জনকে।
এখানেও রাজনীতিকীকরণ! ধরে নিল পুলিশ, ছেড়েও দিল পুলিশ। মাঝখানে এ অভিযোগের আসামী হলেন নেতৃবর্গ! যার কিছুটা অর্থ ঘোড়ার ডিম! এখানে শুধুমাত্র পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনাটাই যথার্থ ছিল। রাজনৈতিক নেতৃবর্গকে টেনে বিশ্বদেব কান্ডের আরেক দফা সৎকার করা হলো। এবার এ মামলা রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করা হবে। তবু ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক মতাদর্শ থেকে। ফলে উভয়পক্ষ কিছুদিন আদালতের বারান্দায় ঘোরাঘুরি করবে, কিন্তু বিশ্বদেবকে নিয়ে আর কিছু হবে না।
আমি বলব না যে এক্ষেত্রে পুলিশ দায়ী। কারণ তাদের স্বপক্ষে ময়নাতদন্ত রিপোর্ট ও ভিসেরা রিপোর্ট রয়েছে। আবার একেবারে নির্দোষ বলার সুযোগ হয়ত নেই, যতক্ষণ না আদালত তাদের নির্দোষ সনদ দেয়। অভিযোগের আঙ্গুল উঠতেই পারে, তবে তা তদন্তসাপেক্ষে প্রমাণিত হবে। কিন্তু কথা হলো, যাকে নিয়ে এত টানাটানি সে বিশ্বদেব এর কি হবে? সংশ্লিষ্ট অধিকাংশই কোন না কোনভাবে রাজনৈতিক ফায়দা লুটবেন। বিশ্বদেব এর পরিবারের কাছে তার স্মৃতি, আহাজারি আর কিছু অর্থ ছাড়া কিছুই রবে না। দৃঢ়চিত্তে না হলেও খুবই সহজভাবে বলা যেতে পারে, ‘বিচার হবে না।’ এর আগেও অনেকেই জীবন দিয়েছেন। রাজনৈতিক বলিও হয়েছেন। নেতাগণ যার-তার নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠায় আজও মরিয়া। হারিয়ে যাওয়াদের খোঁজ কে নেয়?

লেখক- প্রকাশক ও সম্পাদক বাংলার কাগজ, প্রতিনিধি- চ্যানেল নাইন


© All rights reserved © 2017 BanglarKagoj.Net
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com