বুধবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৮, ০৯:০৫ অপরাহ্ন

তারাবিহ্ আদায় প্রসঙ্গে কিছু কথা

তারাবিহ্ আদায় প্রসঙ্গে কিছু কথা

মাওলানা এম এ মান্নান
বিখ্যাত কিতাব ‘নূরুল ঈজা’ শুধু হাক্কানী উলামায়ে কেরামের নিকট নয় বরং সর্বমহলেই উহা একটি নির্ভরযোগ্য ও গ্রহণযোগ্য কিতাব। ঐ কিতাবে লিখিত আছে- তারাবিহের নামায ২০ রাকায়াত। তারাবিহের নামায প্রত্যেক বালেগ পুরুষ ও মহিলার জন্য সুন্নাতে মুয়াক্কাদাহ্। কোন ব্যক্তির পক্ষ থেকে এর অস্বীকৃতি ইসলামে গ্রহণযোগ্য নয়। কোন কোন রাতে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম জামায়াতের সাথে উহা আট রাকায়াত আদায় করেছেন। তারপর তিনি বিশেষ কারণে বাড়িতে চলে গিয়েছেন। বাড়িতে গিয়ে ২০ রাকায়াতের বাকিটুকু পুরা করেছেন।

ইহাও বর্ণিত আছে যে, যখনই তিনি একাকী হয়েছেন তখনই তিনি তারাবিহ্ ২০ রাকায়াত পুরা করেছেন। এতে ইহা প্রমাণ করে যে, তারাবিহ্ আট রাকায়াত নয়। ৪ মাজহাবের সকলের জন্যেই তারাবিহ্ ২০ রাকায়াত সুন্নাত।
শেষ তিন খলীফা এবং সমস্ত সাহাবায়ে কেরাম রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহুম ২০ রাকায়াত তারাবিহ্ জামায়াতের সাথে আদায় করেছেন। ইশার নামাযের শেষ দুই রাকায়াত সুন্নাতের পর ও ভিত্রের নামাযের আগে তারাবিহ্ আদায় করতে হয়।
ইবনে আবেদীন কিতাবের ২৯৫ পৃষ্ঠায় বলা হয়েছে, প্রয়োজনে ভিত্রের পর আদায় করবে তবু ইশার আগে কেহ তারাবিহ্ আদায় করতে পারে না। ফজরের সময় শুরু হওয়ার আগে যে কোন সময় উহা আদায় করা যেতে পারে। তবে ফজরের পর নয়। এ নামাযের কোন কাজা নেই। তারাবিহ্ একটি শক্তিশালী সুন্নাত তাই বলে মাগরিব ও ইশার সুন্নাতের ন্যায় নয়। ঐ সুন্নাতগুলোরও কোন কাজা আদায় নেই। কাজা আদায় শুধু ফরজ ও ভিত্রের নামাযের। শাফী’ মাজহাবে তারাবিহের নামাযের কাজা আদায় করতে হয়।

তাদের মতে, ‘তারাবিহ্ জামায়াতে আদায় করা সুন্নাতে কেফায়া। কিছুলোকে মসজিদে আদায় করলে বাকিরা ঘরে আদায় করে নিতে পারবে। এতে পাপ হবে না। তবে এমতাবস্থায়, মসজিদে জামায়াতের সাথে তারাবিহ্ আদায়ের সওয়াব থেকে বঞ্চিত হবে। যদি তারা ঘরে জামায়াত করে এ নামায আদায় করে তবে একার চেয়ে ২৭ গুণ সওয়াব বেশি পাবে।’
তারাবিহ্ ২ অথবা ৪ রাকায়াত করে আদায় করা যায়। প্রত্যেক ৪ রাকায়াতের পর অল্প সময় দোয়া দুরুদ, তাসবীহ্ তাহ্লীল বা কুরআন তিলাওয়াত করা যেতে পারে। অথবা ইচ্ছা করলে কেহ চুপ করেও থাকতে পারে। এই নামায এক নিয়্যাতে ৪ রাকায়াতের চেয়ে ২ রাকায়াত পড়া উত্তম। ইশার নামায জামায়াতের সাথে না পড়ে তাড়াহুড়া করে তারাবিহের জামায়াতে শরীক হওয়া যাবে না। তারাবিহের জামায়াত চলতে থাকলে ইশার নামায একাকী হলেও আদায় করে পরে তারাবিহে যোগদান করতে হবে।

হুজুর সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, (আল্লাহ) তোমাদের জন্য রমজানের রোজা ফরজ করেছেন আর তারাবিহ্কে করেছেন সুন্নাত। কাজেই আমরা সবাই তারাবিহ্কে গুরুত্ব সহকারে আদায় করব। কেহ কেহ আট রাকায়াত তারাবিহ্ পড়ে বাকিটুকু পড়তে চাই না; অলসতা করি। এমনটি করা আদৌ ঠিক নয়। কারণ আমরা কিন্তু দুনিয়াবি লাভের ক্ষেত্রে তেমন অলসতা করি না,  যেমনটি করে থাকি দীনি ক্ষেত্রে। আল্লাহ পাক আমাদের সবাইকে সহীহ বুঝ দান করুন।


© All rights reserved © 2017 BanglarKagoj.Net
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com