শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০১৮, ০৯:০৪ পূর্বাহ্ন

ঠ্যাংগার চরে রোহিঙ্গাদের পাঠাচ্ছে বাংলাদেশ

ঠ্যাংগার চরে রোহিঙ্গাদের পাঠাচ্ছে বাংলাদেশ

0313

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক :

বঙ্গোপসাগরের ঠ্যাংগার চরে বর্ষা মৌসুম এলেই কয়েকফুট পানির নিচে তলিয়ে যায়। রাস্তাঘাট তো দূরের কথা কোন বন্যা প্রতিরোধ ব্যবস্থাই নেই দ্বীপে। আর এ অবস্থায় ওই দ্বীপে কক্সবাজার থেকে তালিকাভূক্ত ৩২ হাজার রোহিঙ্গা শরণার্থিকে পুর্নবাসন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ সরকার। রোহিঙ্গারা উপকূলীয় জেলা কক্সবাজারের পর্যটন ব্যবসায় ক্ষতি করছে অজুহাত তুলে সরকার এ উদ্যোগ নিচ্ছে। রোববার বাংলাদেশি কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা এএফপি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

মাত্র আট বছর আগে জেগে ওঠা ঠ্যাংগা চরের আয়তন মাত্র ৩০ কিলোমিটার। এটি হাতিয়ার পূর্ব দিকে অবস্থিত। হাতিয়া উপজেলা প্রশাসন দ্বীপটির সার্বিক দেখভাল করেন। তবে স্থানীয় নৌকার মাঝিরা জানিয়েছেন, তারা ওই দ্বীপে খুব কমই যাতায়াত করেন। জুন থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সমুদ্র যখন বিক্ষুব্ধ থাকে তখন ওই দ্বীপে যাতায়াত মুশকিল হয়ে পড়ে। ওই সময় দ্বীপটি মূল ভূখন্ড থেকে পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।

হাতিয়া উপজেলা কর্মকর্তা এএইচএম মইনুদ্দিন জানান, সরকারের পক্ষ থেকে দ্বীপটি বাছাই করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে রোহিঙ্গাদের সরিয়ে নেয়া হবে।

তিনি স্বীকার করেন, হাজার হাজার রোহিঙ্গাকে ওই দ্বীপে পুর্নবাসন করা সত্যি চ্যালেঞ্জিং। তবে ঘুর্নিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র, বাঁধ ও হাসপাতাল নির্মানের মাধ্যমে জায়গাটি বাসযোগ্য হয়ে উঠবে।

জনবিচ্ছিন্ন ও জলদস্যুদের আনাগোনা থাকলেও দ্বীপটি রোহিঙ্গাদের বসবাসের জন্য আদর্শ জায়গা বলে দাবি করেছেন হাতিয়ার পুলিশ প্রধান নুরুল হুদা।

তিনি বলেন, সেখানকার আইনশৃঙ্খলা রক্ষা করতে আমাদের কেবল একটি পুলিশ স্টেশন প্রয়োজন।

প্রসঙ্গত, সরকারি তথ্য অনুযায়ী, কক্সবাজারে দুটি শরণার্থী ক্যাম্পে ৩২ হাজার নিবন্ধিত রোহিঙ্গা নাগরিক রয়েছেন, যারা নিজ দেশ মিয়ানমারে সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধদের দ্বারা বৈষম্যমূলক আচরণের শিকার হয়ে বিভিন্ন সময়ে পালিয়ে বাংলাদেশে চলে এসেছেন।

১৯৯১ সাল থেকে কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সহায়তা দিয়ে আসা জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা বাংলাদেশ সরকারের এ সিদ্ধান্তকে ‘নীতিগতভাবে চ্যালেঞ্জিং’ বলে মন্তব্য করেছে।


© All rights reserved © 2017 BanglarKagoj.Net
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com