শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০১৮, ০৯:০৬ পূর্বাহ্ন

জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্র-কিউবা চুক্তি

জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্র-কিউবা চুক্তি

Obama-and-Raul-Castro

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :

জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্র ও কিউবা একটি চুক্তিতে পৌঁছুতে পারবে বলে আশা করছে ওবামা প্রশাসন। ওই চুক্তিটি স্বাক্ষরিত হলে দু দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক পুন:স্থাপন এবং দূতাবাস পুনরায় চালু করা সম্ভব হবে। শুক্রবার এ ইস্যুটি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল এক মার্কিন সূত্র সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে এ খবর জানিয়েছে।

রয়টার্স জানিয়েছে, দুই পক্ষই আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে এ সংক্রান্ত চুক্তিতে পৌঁছানো সম্ভব হবে বলে আশা করছে। যুক্তরাষ্ট্রে কিউবার পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠিত হওয়ার হাভানায় একটি পূর্ণাঙ্গ দূতাবাস খোলার বিষয়ে আলোচনার জন্য শীঘ্রই দেশটিতে সফরে যাচ্ছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি।

গত ডিসেম্বরে দু দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক পুন:স্থাপণের ঘোষণা দেয়ার পর থেকেই এ নিয়ে উদ্যোগ শুরু হয়েছে। অনেকগুলো  গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে একমত হয়েছে ওয়াশিংটন-হাভানা। তবে যে গুটিকয়েক বিষয়ে এখনো মতবিরোধ বিদ্যমান শীঘ্রই তা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হবে বলেও সূত্রটি রয়টার্সকে জানিয়েছে।

তবে হাভানায় কবে নাগাদ মার্কিন দূতাবাস চালু হতে পারে তার কোনো নির্দিষ্ট তারিখ ঘোষণা করা হয়নি। কেরির আকস্মিক দুর্ঘটনায় পড়ার কারণে এটি পিছিয়ে পড়েছে। ফ্রান্স সফরকালে গত ৩১ মে পা ভেঙে যাওয়ার পর বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তিনি। এ কারণে ইরানের পরমাণু কর্মসূচী সংক্রান্ত চূড়ান্ত চুক্তিতে পৌঁছাতেও বিলম্ব হতে পারে। ওই চুক্তি স্বাক্ষরের জন্য চূড়ান্ত সময়সীমা বেধে দেয়া হয়েছে আগামী ৩০ জুন। তবে কিউবার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক স্বাভাবিক করার প্রক্রিয়াটি ধীর লয়ে চলবে বলে ধারনা করা হচ্ছে। কেননা কিউবার মানবাধিকার পরিস্থিতির বর্তমান রেকর্ড নিয়ে আপত্তি রয়েছে ওবামা প্রশাসনের। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে দ্রুত নিজ দেশের ওপর থেকে মার্কিন নিষেধাজ্ঞার অপসারণ চাইছে কিউবা। কিন্তু মার্কিন কংগ্রেসের অনুমোদন ছাড়া ওবামার একার পক্ষে এই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া সম্ভব নয়।

আগামী দু সপ্তাহের মধ্যে কংগ্রেসে ইস্যুটি উত্থাপন করবে ওবামা প্রশাসন। এরপরই হাভানায় দূতাবাস চালু করার অভিপ্রায় বাস্তবায়নে তৎপর হবে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন কংগ্রেসে ওই নিষেধাজ্ঞা বাতিল করে আইন পাস করতে কমপক্ষে ১৫ দিন লাগবে।

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণে আগ্রহী কিউবাও দূতাবাস পুনরায় খুলে দেয়ার পক্ষে। কিন্তু এই দুটি দেশ কবে নাগাদ তাদের রাষ্ট্রদূতদের নাম ঘোষণা করবে তা এখনো স্পষ্ট নয়।

ওয়াশিংটনে একটি পূর্ণাঙ্গ দূতাবাস চালু করার প্রস্তুতি চালিয়ে যাচ্ছে কিউবা। বুধবার তারা মার্কিন রাজধানীর একটি ভবনের সামনে নিজ দেশের পতাকা উত্তোলন করেছে বলে জানা গেছে। এখন কেবল আনুষ্ঠানিক ঘোষণার প্রতীক্ষা।

প্রসঙ্গত, গত ১৭ ডিসেম্বের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এবং কিউবার প্রেসিডেন্ট রাউল ক্যাস্ট্রে দু দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক পুনস্থাপণের ঘোষণা দিয়েছিলেন। পরে এপ্রিলের মাঝামাঝিতে দুই নেতা পানামায় ফের মিলিত হন।

সম্পর্ক স্বভাবিক করার ক্ষেত্রে দু দেশেরই সমান আগ্রহ লক্ষণীয়। গত মাসে কিউবাকে সন্ত্রাসী রাষ্ট্রের থেকে বাদ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ওবামা প্রশাসনের এ পদক্ষেপকে কিউবার সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হিসেবেই দেখা হচ্ছে। গত ৫৪ বছর আগে দেশটির সঙ্গে সকল কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে হাভানার ওপর ওই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিল যুক্তরাষ্ট্র।

গত মে মাসে ওয়াশিংটনে এ নিয়ে উচ্চ পর্যায়ের আলোচনায় মিলিত হয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র এবং কিউবা। সেখানে মার্কিন প্রতিনিধিরা হাভানায় তাদের কূটনীতিকদের অবাধে চলাফেরা করার স্বাধীনতা দাবি করেছিল। তবে হাভানায় সাংবাদিক এবং তথ্য প্রযুক্তির কর্মীদের মার্কিন প্রশিক্ষনের বিরুদ্ধে আপত্তি তুলেছে কিউবা।

তবে কিউবার সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরের বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি গোয়াইট হাউস। এ বিষয়ে মুখ খুলেনি কিউবা সরকারও।


© All rights reserved © 2017 BanglarKagoj.Net
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com