শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০১৮, ০৮:৫৭ পূর্বাহ্ন

চাল সংগ্রহে ঘুষবাণিজ্য : দায় এড়াতে পারেন না তদন্ত কমিটি

চাল সংগ্রহে ঘুষবাণিজ্য : দায় এড়াতে পারেন না তদন্ত কমিটি

m-17-5-15-2 copy

গত কয়েকদিন যাবত নালিতাবাড়ীতে সরকারী ভাবে চাল সংগ্রহে ঘুষ ও কমিশন বাণিজ্য তথা অনিয়মের বিষয়টি আলোচনার তুঙ্গে। স্যোশাল মিডিয়া থেকে শুুরু করে প্রথমেই বাংলার কাগজ অনলাইন ভার্সনে বিষয়টি প্রকাশিত ও প্রচারিত হয়। এরপর সাপ্তাহিক বাংলার কাগজ দিয়ে শুরু। পর্যায়ক্রমে যুগান্তর, প্রথম আলো ও আমার দেশের মতো জাতীয় দৈনিকগুলো গুুরুত্বের সঙ্গে খবরটি প্রকাশ করে।
খবরে যথারীতি এর সাথে সম্পৃক্ত উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক, মিল মালিক সমিতির সভাপতি ও উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক এ তিনজনের কথা স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা হয়েছে। কিন্তু যে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের আলোকে পরিত্যক্ত ও বন্ধ থাকা মিলগুলো সরকারের সাথে চুক্তিবদ্ধ হল এবং প্রকৃত মিল মালিকদের কেউ কেউ বঞ্চিত হল- সে তদন্ত কমিটি অবশ্যই এর দায় এড়াতে পারে না।
শুধু তাই নয়, এর সঙ্গে পরোক্ষভাবে জড়িত অন্য আ’লীগ নেতাদেরও এ অপরাধের আওতায় আনা জরুরী। যেখানে মতিয়া চৌধুরীর মতো একজন নিষ্ঠাবান নেত্রী আমাদের উন্নয়ন ও স্বচ্ছতার স্বপ্ন দেখাবেন, সেখানে কতিপয় ব্যক্তি দুর্নীতি ও ঘুষবাণিজ্য করে নিজের পকেট ভারি করবেন- এটা হতে দেয়া যায় না।
প্রাপ্ত তথ্যমতে, তদন্ত কমিটিতে প্রধান ও সভাপতি নির্বাচন করা হয় বর্তমান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবু সাঈদ মোল্লাকে। এ কমিটির সদস্য সচিব করা হয় উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আব্দুল বাতেনকে। অপর তিন সদস্যরা হলেন- মিল মালিক সমিতির সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শরিফ ইকবাল ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর কবীর।
আমাদের প্রাপ্ত তথ্যমতে, শেষোক্ত দুই কর্মকর্তা এখানে পুতুলমাত্র। কাজটি সেড়েছেন বাকী তিন জনই। এঁদের অতীত-বর্তমান কোনটাই সুখকর নয়। গুদাম লুট, দীর্ঘদিন একই জায়গায় কর্মরত থেকে ভেজা বেড়ালের মতো অভিনয় করে দুর্নীতির পাহাড় গড়ে তোলা এবং বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড থেকে শুরু করে সকল দাপ্তরিক কাজে উপকারভোগী তথা সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে নিজ অধীনে কর্মচারীর মাধ্যমে ঘুষ গ্রহণ- এসব আমরা নিত্য-নৈমিত্তিক দেখে আসছি এবং অতীতে দেখেছি।
উপরে ভালো আবরণে ঢেকে ভেতরে অপকর্মের ভূত পোষে লাভ নেই। সবাই সব জানতে পারে। পৃথিবীতে কেউই বোকা নয়; বরং যিনি অন্যদের বোকা ভাবেন বা বানানোর চেষ্টা করেন- তিনিই বোকার স্বর্গে বাস করছেন।
আমরা নালিতাবাড়ীকে দুর্নীতি মুক্ত দেখতে চাই। আমরা উন্নয়নশীল একটি উপজেলা হিসেবে দেখতে চাই আমাদের প্রিয় নালিতাবাড়ীকে। কাজেই এখানে যারা ব্যত্যয় ঘটাবে, সে যেই হোক- সরকারী দলের নেতা-ক্যাডার অথবা প্রশাসনের কেউ; কাউকে ছাড় দেওয়ার সুযোগ তৈরি হতে পারে না। হওয়া কাম্য নয়। তাই সরকারী ভাবে চাল সংগ্রহে দুর্নীতি ও ঘুষ বাণিজ্যের সঙ্গে সম্পৃক্ত সকলকে বিচারের মুখোমুখি করা উচিত। উচিত অন্য দুর্নীতিবাজদেরও সামাজিক ও সাংগঠনিক কাঠগড়ায় দাড় করানো। বড় বড় অন্যায়ের সঙ্গে জড়িত থেকে সমাজে বড় গলায় কথা বলবে- এটা কোন সভ্য সমাজে হওয়া উচিত নয়।


© All rights reserved © 2017 BanglarKagoj.Net
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com