শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০১৮, ০৮:৪৬ পূর্বাহ্ন

ঘুষবাণিজ্য ও অনিয়মের অভিযোগে নালিতাবাড়ী খাদ্যগুদামে ৮ মিলের চাল সরবরাহ বন্ধ, তদন্ত কমিটি

ঘুষবাণিজ্য ও অনিয়মের অভিযোগে নালিতাবাড়ী খাদ্যগুদামে ৮ মিলের চাল সরবরাহ বন্ধ, তদন্ত কমিটি

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) প্রতিনিধি :
২০১৫ সালে সরকারী ভাবে বোরো মৌসুমের চাল সরবরাহে শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক, মিল মালিক সমিতির সভাপতি ও সরকারদলীয় কতিপয় নেতার বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ ওঠার পর টনক নড়েছে প্রশাসনে। সাময়িক ভাবে ৮টি মিলের চাল সরবরাহ স্থগিতের আদেশ দিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।
৯ জুন এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনার পর ১০ জুন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক জিএম ফারুক হোসেন পাটোয়ারি।
সূত্রমতে, চলতি বছর উপজেলায় ১০৪টি লাইসেন্সধারী রাইচমিলের বিপরীতে সরকারী ভাবে মোট ৫ হাজার ৯০৫ মেট্টিকটন চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। এরমধ্যে প্রথম দুই দফায় ৪৭টি এবং দ্বিতীয় দুই দফায় ৩২টি সর্বমোট চার দফায় ৭৯টি মিল সরকারের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়।
অভিযোগ রয়েছে, সরকারের নীতিমালা মেনে প্রথম দফায় বেশিরভাগ মিল চুক্তিবদ্ধ করা হলেও পরবর্তী দফায় চুক্তিবদ্ধ ৩২টি মিলের মধ্যে ১৬টিই বন্ধ ও বেশিরভাগ পরিত্যক্ত। রাজনৈতিক ও ব্যক্তিগত প্রভাব এবং মিল মালিকের কাছ থেকে মোটা অংকের ঘুষ এবং কমিশন নিয়ে এগুলো চুক্তির আওতায় আনা হয়। একই সঙ্গে ঘুষ ও কমিশনের শর্তে রাজি না হওয়ায় চুক্তি থেকে বাদ পড়ে ১৯টি চাউল কল। এ প্রেক্ষিতে বঞ্চিত ব্যবসায়ীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ও বিষয়টি বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ায় গত ৮ জুন প্রথমে খাদ্য অধিদপ্তরের আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে মৌখিক এবং পরবর্তীতে ৯ জুন লিখিতভাবে সামিয়কভাবে ৮টি মিলের সরবরাহ বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়। একই সঙ্গে শেরপুর জেলা ও সদর খাদ্য নিয়ন্ত্রকের সমন্বয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। সাময়িক ভাবে বন্ধ রাখতে নির্দেশিত মিলগুলোর মধ্যে মিল মালিক সভাপতির মুমু চাউল কল ও উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ফজলুর রহমানের নিয়ন্ত্রণাধীন লিয়াকত ও জান্নাত চাউল কল ছাড়াও রয়েছে নিউ আল-আমিন চাউল কল, শাপলা চাউল কল, ঋজু চাউল কল, রুবেল চাউল কল ও মা চাউল কল।


© All rights reserved © 2017 BanglarKagoj.Net
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com