বৃহস্পতিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০১৮, ০৩:৩২ পূর্বাহ্ন

এবার সাকার আপিল শুনানি শুরু

এবার সাকার আপিল শুনানি শুরু

63_1-e1409722517297-300x168

স্টাফ রিপোর্টার:

মানবতাবিরোধী অপরাধরে দায়ে ট্রাইব্যুনালের মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাউদ্দনি কাদের চৌধুরীর মামলার আপিল শুনানি শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার নেতৃত্বাধীন চার সদস্যের আপিল বেঞ্চে এ শুনানি শুরু হয়।

সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর পক্ষে আদালতে শুনানি শুরু করেন সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকট খন্দকার মাহবুব হোসেন। অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

পরে আদালতে সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর পক্ষে আপিল বিভাগে এ মামলার পেপারবুক পড়া শুরু করেন অ্যাডভোকেট এসএম শাহজাহান হোসেন। কিছুক্ষণ শুনানির পর আদালত বিরতি দেন।

২০১৩ সালরে ২৯ অক্টোবর মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাউদ্দনি কাদের চৌধুরীর মামলায় খালাস চেয়ে আপিল করেন। আপিল আবেদনে মোট ১ হাজার ৩শ’ ২৩ পৃষ্ঠার নথিপত্রে বিভিন্ন ডকুমেন্টসহ ২৭টি গ্রাউন্ড রয়েছে বলে জানিয়েছেন তার আইনজীবীরা। যার আপিল নম্বর হচ্ছে ১২২/১৩।

গত ১ অক্টোবর ট্রাইব্যুনাল-১ এর চেয়ারম্যান বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীরের নেতৃত্বে গঠিত তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল সালাউদ্দনি কাদের চৌধুরীর বিরুদ্ধে রায় ঘোষণা করেন। রায়ে তার বিরুদ্ধে আনা ২৩টি অভিযোগের মধ্যে ৯টি অভিযোগ প্রমাণ হয়। বাকি ১৪টি অভিযোগ প্রমাণ করতে পারেনি প্রসিকিউশন। প্রমাণিত অভিযোগগুলো হলো- ২, ৩, ৪, ৫, ৬, ৭, ৮, ১৭ ও ১৮ নম্বর।

এর মধ্যে ৩, ৫, ৬ এবং ৮ নম্বর অভিযোগে তাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়। আর ২, ৪, ৭ নম্বর অভিযোগে ২০ বছর করে কারাদণ্ড দেয়া হয়। এছাড়া ১৭ এবং ১৮ নম্বর অভিযোগে ৫ বছর করে কারাদণ্ড দেয়া হয়।

রায়ে বলা হয়, আসামি সাকা চৌধুরী তার ও তার পক্ষে দেয়া সাফাই সাক্ষ্যে ৭১ সালের ২৯ র্মাচ থেকে ১৯৭৪ সাল পর্যন্ত তার দেশে না থাকার যে সাক্ষ্য দেয়া হয়েছে তা প্রমাণিদত হয়নি। পক্ষান্তরে প্রসিকিউশনের দেয়া সাক্ষ্য ও ডকুমেন্টে প্রমাণ হয়েছে ৭১-এ সাকা চৌধুরী দেশে ছিলেন এবং চট্রগ্রামের বিভিন্ন এলাকায় পাক বাহিনীর সহযোগী হিসেবে মানবতাবিরোধী বিভিন্ন অপরাধ করেছেন। যা প্রসিকিউশন সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করতে পেরেছে।

মানবতাবিরোধী অপরাধে ২০১১ সালরে ১৪ নভম্বের সাকা চৌধুরীর বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করে প্রসিকিউশন। ওই বছরের ১৮ নভেম্বর তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ আমলে নেয় ট্রাইব্যুনাল। এরপর ২০১২ সালের ৪ এপ্রিল তার বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট ২৩টি অভিযোগে চার্জ গঠন করা হয়।

সাকা চৌধুরীর বিরুদ্ধে গত বছরের ১৪ মে থেকে গত ১৩ জুন পর্যন্ত প্রসিকিউশনের সাক্ষ্যগ্রহণ ও আসামিপক্ষের জেরা সম্পন্ন হয়। তার বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা (আইও) মো. নূরুল ইসলামসহ ঘটনা ও জব্দ তালিকার সাক্ষি মিলিয়ে প্রসিকিউশনের ৪১ জন সাক্ষি। আর ৪ জন সাক্ষির আইও’র কাছে দেয়া জবানবন্দি সাক্ষ্য হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছে।


© All rights reserved © 2017 BanglarKagoj.Net
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com