বুধবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৮, ০৯:০৩ অপরাহ্ন

আন্দোলনের নামে জঙ্গি কর্মকাণ্ড মানা হবেনা : আইজিপি

আন্দোলনের নামে জঙ্গি কর্মকাণ্ড মানা হবেনা : আইজিপি

Ctg-police-igp-2

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি :

উন্নয়নের সব দিকে এগিয়ে যাওয়া দেশে আন্দোলনের নামে কোনভাবেই জঙ্গি কর্মকাণ্ড চালাতে দেয়া হবে না বলে জানিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক।

তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশটাকে যেন কোন জঙ্গিদের হাতে না যায় সেজন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আমাদের দেশটাকে আফগানিস্তান, সিরিয়া, ইরাক, লেবাননের মত করতে দিতে পারিনা। মুসলমান মুসলমানকে কিভাবে বোমা মেরে হত্যা করে। মসজিদের ভেতর বোমা হামলা করে। এগুলো কি জিহাদ? জিহাদের নামে এসব জঙ্গিপনা আমরা সহ্য করবো না।’

রোববার বেলা ১২টার দিকে নগরীর নন্দনকাননে পুলিশ কল্যাণ ট্রাস্ট্রের নির্মাণাধীন ‘আরএফ পুলিশ প্লাজার’ উদ্বোধনকালে এসব কথা বলেন।

২০ দলীয় জোটের আন্দোলনকে জঙ্গি কর্মকাণ্ড উল্লেখ করে আইজিপি বলেন, ‘গত ৫ জানুয়ারির পর থেকে ৯২ টি দিন আন্দোলনের নামে পেট্রোল বোমা হামলা করা হয়েছে। শিশু, বৃদ্ধ, স্কুল ছাত্র, গর্ভবর্তী মহিলাসহ কেউই বাদ যায়নি এই পেট্রোল সন্ত্রাস থেকে। এই পেট্রোলবোমা হামলা করে এতগুলো লোক পুড়িয়ে মারা হলো তাদের কি কোন বিবেকবোধ রয়েছে? কোন মনুষ্যত্ববোধ থাকা মানুষ কি এ ধরণের কর্মকা-কে সমর্থন করতে পারে? এসব যারা করেছে, তাদের লক্ষ হচ্ছে এই দেশটাকে জঙ্গি রাষ্ট্র হিসেবে পরিণত করা। কিন্তু আমরাতো আমাদের দেশকে জঙ্গি রাষ্ট্র হতে দেবো না।’

পেট্রোল সন্ত্রাস কখনো রাজনীতি হতে পারেনা উল্লেখ করে পুলিশের শীর্ষ এ কর্মকর্তা বলেন, ‘রাজনীতি করবেন গণতান্ত্রিকভাবে। এ জীবনে বহু আন্দোলন আমরা দেখেছি। সেই ১৯৪৭ সাল থেকে আন্দোলন দেখে আসছি। কই কোথাও তো এধরণের মানুষ পুড়িয়ে আন্দোলন সফল হতে দেখিনি। গণতান্ত্রিক আন্দোলনের মাধ্যমে রাজনীতি করতে হবে, কোন ধরণের নৈরাজ্য করা যাবে না। এরপরও জনগণকে সাথে নিয়ে আমরা পুলিশ বাহিনী এই নির্মম কর্মকাণ্ডকে দমন করতে পেরেছি।’

জঙ্গিদের সম্মিলতিভাবে দমনের কথা জানিয়ে শহীদুল হক বলেন, ‘যারা এসব জঙ্গি কার্যক্রম করে, প্রচার করে এবং তাদের মতবাদ প্রচার করে তাদের বিরুদ্ধে যে কোন তথ্য দিয়ে পুলিশকে আপনারা সহযোগিতা করবেন। দেশের প্রতি আমাদের দায়িত্ব পালনকারীদের দমন করতে হবে। সুশীল সমাজকে সাথে নিয়ে এসব জঙ্গিদের মোকাবেলা করতে হবে।’

দেশে এগিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দেশ অনেক অগিয়ে গেছে। আইএমএফ, বিশ্বব্যাংকসহ বিশ্বের সব দাতা সংস্থা এখন বাংলাদেশের উন্নতি দেখে সন্তোষ প্রকাশ করছে। আমাদের মাথাপিছু আয় বেড়েছে, কর্মসংস্থান বেড়েছে, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বেড়েছে। আমাদের এই ধারা অব্যাহত রাখতে হলে দেশের স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে হবে। আন্দোলনের নামে যাতে আর কোন জঙ্গি কার্যক্রম চালাতে না পারে সেজন্য আমাদের সকলকে একযোগে কাজ করতে হবে।’

পুলিশ কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্য করে আইজিপি বলেন, ‘অফিসারদের প্রতি একটাই ম্যাসেজ। দেশ যেখানে এগিয়ে যাচ্ছে, দেশের জনগণ যেখানে শান্তি চায়, সেখানে যে কোন ধরণের নাশকতা সহ্য করা হবেনা। নাশকতাকারীদের অবশ্যই শক্ত হাতে দমন করা হবে।’

চট্টগ্রামের ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে সাবেক ডিআইজি শহীদুল হক বলেন, ‘সামনে রমজান আসছে। আমরা বিদেশে দেখি তাদের বড় দিন কিংবা উৎসবের সময় জিনিস পত্রের দাম কমিয়ে দেয়। কিন্তু আমাদের দেশের ধর্মীয় কোন উৎসব আসলেই জিনিস পত্রের দাম বাড়িয়ে দেয়। রমজান মাসে মানুষকে একটু স্বস্তি দেয়া সকলে দায়িত্ব। যেখানে মানুষকে লাখ লাখ টাকার ইফতার সামগ্রী বিনা পয়সায় খাওয়ানো হয়। সেখানে কিভাবে জিনিসের দাম বাড়ান ব্যবসায়ীরা। আপনারা লাভ করুন কিন্তু তা সীমিত আকারে করুন।’

পুলিশ বাহিনীর প্রতি সংস্থাটির প্রধান বলেন, ‘কাজের মাধ্যমে জনগণের সাথে পুলিশের দূরত্বটা কমিয়ে আনতে হবে। পুলিশ ও জনগণ পারস্পরিক যোগাযোগের ভিত্তিতে একসাথে কাজ করতে হবে। কমিউনিটি পুলিশি ব্যবস্থাটা জোরদার করা গেলে সমাজে অপরাধ অনেকটাই কমে আসবে। পুলিশের প্রতি মানুষের যে মনোভাব রয়েছে সেটি দূর করতে প্রথমে পুলিশকেই এগিয়ে আসতে হবে। মানুষ কখন মনে করবে পুলিশ আসলে খারাপ না, যখন পুলিশ তার বিপদে এগিয়ে এসে সেবা করবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘পুলিশ সদস্যদের বলবো আপনারা মানুষকে বেটার সার্ভিস দেন। পুলিশের যে ক্ষমতা রয়েছে এটি পুলিশের ক্ষমতা নয়, এটি আইনের ক্ষমতা। এই ক্ষমতার মধ্য থেকে জনগনকে বেটার সার্ভিসটা দিতে হবে। পুলিশের সব কার্যক্রম হতে হবে গণমুখী, সেবামুখী। পুলিশের সেবা নিতে জনগণকেও পুলিশের কাছাকাছি থাকতে হবে, সহযোগিতা করতে হবে। জনগণের সহযোগিতা ছাড়া পুলিশি কার্যক্রম কখনো সফল হয়না। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে অনেক গবেষণা করেই কমিউনিটি পুলিশের ওপর জোর দেয়া হয়েছে অপরাধ দমনে।’

পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মো. শফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত মহা পরিদর্শক মঈনুর রহমান চৌধুরী, পুলিশ কল্যাণ ট্রাস্টের সচিব ডিআইজি মোজাম্মেল হক খান, সিএমপি কমিশনার আব্দুল জলিল মণ্ডল প্রমুখ।

এদিকে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে আইজিপি বলেন, ‘২০০৮ সালে আমি তৎকালীন চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি হিসেবে পুলিশ প্লাজার ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেছিলাম। এটা আনন্দের বিষয় এই প্লাজার উদ্বোধনও আমার মাধ্যমে হচ্ছে। কিন্তু উদ্বোধন করতে এসে আমার নামের ফলকটা আমি কোথাও খুঁজে পেলাম না। আমার মনে হয় ফলকটা  কোথাও লাগালে ভাল হবে।’

সাততলাবিশিষ্ট এই পুলিশ প্লাজা দেশের সর্ববৃহৎ ইলেকট্রিক ও ইলেকট্রনিক্স পণ্য বিক্রির মার্কেট হবে বলে দাবি করেন পুলিশ কর্মকর্তারা ও নির্মাণ প্রতিষ্ঠান আর এফ বিল্ডার্স কর্তৃপক্ষ। ২০১১ সালে প্লাজার নির্মাণকাজ শেষ হলেও প্রায় চার বছর পর এটি উদ্বোধন করা হল।


© All rights reserved © 2017 BanglarKagoj.Net
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com